ঢাকা শুক্রবার, নভেম্বর ২৪, ২০১৭


কুবিতে ফের এক শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগের মারধর

কুবি সংবাদদাতা:একের পর এক বিভিন্ন বাহানায় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাতে মারধরের শিকার হচ্ছেন অনেক শিক্ষার্থী। কখনও দলীয় অন্তঃকোন্দল, কখনও পূর্ব শত্রুতা, আবার কখনও শিবির অভিযোগে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাতে বেধড়ক মারধরের শিকার হয়েছেন অনেক শিক্ষার্থী। এ রকম মারধরের নানান অভিযোগের মধ্যেই শিবিরের অভিযোগে ফের এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে শাখা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। রবিবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ঐ শিক্ষার্থীকে মারধর করে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের ৭ম ব্যাচের শিক্ষার্থী মো: রায়হান ইসলামকে শিবির করার অভিযোগ দিয়ে মারধর করে শাখা ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী। শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সাদী (কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের ৭ম ব্যাচ), সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম দস্তগীর ফরহাদ (গনিত বিভাগের ৭ম ব্যাচ), ছাত্রলীগ কর্মী হাসান বিদ্যুৎ (পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের ৬ষ্ঠ ব্যাচ) ও রাফিউল আলম দীপ্তসহ (হিসাব ও তথ্য বিজ্ঞান বিভাগের ১০ম ব্যাচ) ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী রায়হানকে কাঠ দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। গুরুতর আহত অবস্থায় বন্ধুরা রায়হানকে অটো রিক্সায় করে নিয়ে যাওয়ার পথে রায়হান ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাকে তারা ডেকে নিয়ে শিবির বলে মারধর শুরু করে।’ তবে তিনি কোন রাজনীতির সাথেই জড়িত নয় বলে জানান রায়হান।

অভিযুক্তদের মধ্যে শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল হাসান সাদীর মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।
বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ বলেন, ‘ঐ শিক্ষার্থী শিবির হয়ে থাকলে মারধর করা ঠিক আছে। আর ঐ শিক্ষার্থী শিবির না হয়ে থাকলে যারা মারধর করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ শিবিরের অভিযোগে ছাত্রলীগ কাউকে মারধর করতে পারে কিনা এবং এতে আইনের অমান্য হয় কিনা এমন প্রশ্ন এড়িয়ে যান ইলিয়াস হোসেন।

এ বিষয়ে প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, ‘মারধরের বিষয়ে কোনঅভিযোগ এখনও আমি পাইনি। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এর আগেও শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল হাসান সাদীর বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের হুমকি দেয়াসহ সাধারণ শিক্ষার্থীদের মারধরের অভিযোগ রয়েছে। গত ৯ আগস্টও দুই শিক্ষার্থীকে শিবিরের অভিযোগে মারধর করে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এছাড়াও বিভিন্ন সময় দলীয় অন্তঃকোন্দলের কারনে শাখা ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীকে মারধরের অভিযোগ রয়েছে এদের বিরুদ্ধে।

আরো খবর পড়ুন

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Print this page