ঢাকা সোমবার, এপ্রিল ২৩, ২০১৮


ব্রেইনিআক্স এর দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত

‘ব্রেইনিআক্স ২০১৮’ মূলত একটি মত বিনিময় সভা যাতে দেশের শীর্ষস্থানীয় বহুজাতিক কোম্পানির উচ্চপদস্থ  ব্যক্তিবর্গ তাদের সফলতার গল্পগুলো নিয়ে সবার সাথে মত বিনিময় করতে পারবেন। বিজ-বি কর্তৃক আয়োজিত এই অনুষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য হলো বর্তমান প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের মাঝে তাদের ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে দক্ষতা ও জ্ঞান অর্জন করানো। শিক্ষার্থীরা এ থেকে আরো জানতে পারবে ভবিষ্যতের প্রতিযোগিতামূলক চাকরির বাজারে কিভাবে নিজেকে সফল ও কর্মক্ষেত্রে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে পারে। এই অনুষ্ঠানটিকে সাফল্যমন্ডিত করার উদ্দেশ্যে ব্যবসায়িক সংঘটন বিজ্-বি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে  এ সম্পর্কিত পোস্টার ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সাহায্যে ব্যাপক প্রচারণা কার্য সম্পাদনা করে।

‘ব্রেইনিআক্স ২০১৮’ মূলত দুইদিন ব্যাপী একটি মত বিনিময় সভা। যার প্রথম পর্ব ইতোমধ্যে ২৫শে মার্চ (রবিবার) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এটির দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হয়েছে ২৮শে মার্চ (বুধবার) একই স্থানে।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হয়েছে ২৮ শে মার্চ, বুধবার। এই পর্বে উপস্থিত ছিলেন অত্যন্ত অভিজ্ঞতা সম্পন্ন দেশের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ ব্যক্তিবর্গ। তাদের মধ্যে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব প্রফেসর সৈয়দ সাদ আন্দালিব (ভিসি, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়)। এতে বিশেষ অতিথি এবং মূল-বক্তা হিসেবে ছিলেন জনাব তপন চৌধুরী (ব্যবস্থাপনা পরিচালক, স্কয়ার গ্রুপ), যিনি কথা বলেছেন ব্যবসায় পরিবেশ নিয়ে। অতীত এবং বর্তমানে ব্যবসায়িক পরিবেশের যে পার্থক্য এ সম্পর্কে নিজের মত প্রকাশ করেন। এছাড়াও ছিলেন জনাব  সালেহউদ্দীন আহমেদ (সাবেক গভর্নর, বাংলাদেশ ব্যাংক), যিনি আলোচনা করেছেন ব্যাংকিং খাত নিয়ে। ব্যাংকিং খাতের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়বস্তু ছিলো তাঁর আলোচনার মূল বিষয়বস্তু। এছাড়াও ছিলেন জনাব মোঃ জুনায়েদ (ডিজিটাল ম্যানেজার, বিএটিবি), তিনি বলেছেন ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে। বর্তমান প্রযুক্তির যুগে মার্কেটিং খাতের উন্নতি ও ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে আলোকপাত করেন। এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন জনাব আরিফ শাহরিয়ার (চিফ পিপলস্ অফিসার, রহিমাআফরোজ), জনাব ফখরুল হাসান (ডিজিএম, স্কয়ার গ্রুপ) এবং জনাব পিটার হালদার (এইচআর অপারেটিং ম্যানেজার, গ্লাক্সোস্মিথক্লাইন)।

বর্তমানের কর্মক্ষেত্রে নিয়োগ প্রক্রিয়ার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন। কর্মক্ষেত্রে নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতা ও পূর্ববর্তী অভিজ্ঞগতা অর্জন যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেই বিষয়ে আলোকপাত করার জন্য শিক্ষার্থীদের কাছে পরামর্শ প্রদান করেন।

এছাড়াও আরো অনেক উচ্চপদস্থ ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এই পর্বে মূলত বক্তারা তাদের কর্মজীবন এর অভিজ্ঞতা ও প্রতিবন্ধকতাগুলো সম্পর্কে শিক্ষার্থীদেরকে অবহিত করেছেন। যা শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত কর্মজীবন সম্পর্কে মানসিকভাবে প্রস্তুত করে তুলবে।

আরো খবর পড়ুন

Share on Facebook170Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Print this page